একুশের টিভির সাংবাদিক অখিল পোদ্দারকে পেটালো পুলিশ

  ২৭, আগ ২০১৪  |    Online Desk, ডেস্ক রিপোর্ট  |    243

মিডিয়া কর্মীদের উপরে চলছে একের পর হামলা । এবার একুশে টেলিভিশনের বিশেষ প্রতিনিধি অখিল পোদ্দারকে বেধড়ক পিটিয়েছে পুলিশ। মঙ্গলবার রাত নয়টার দিকে কুমারখালীর বাটিকামারা রেলগেট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। তিনি কুমারখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।
অখিল পোদ্দার সাংবাকিদদের জানান, তিনি ও মোহনা টেলিভিশনের খোকসা উপজেলা প্রতিনিধি মনিরুল ইসলাম রাতে মোটরসাইকেলযোগে কুষ্টিয়া শহর থেকে খোকসার নিজ বাড়িতে ফিরছিলেন। ফেরার পথে বাটিকামারা রেলগেট নামক স্থানে পৌঁছালে সেখানে টলহরত কুমারখালী থানার এএসআই আবুল কালাম আজাদ তাকে থামান। সেসময় অখিল পোদ্দার সাংবাদিক পরিচয় দিলে কোনো কারণ ছাড়াই ওই পুলিশ কর্মকর্তা সাংবাদিকেদের জাত তুলে গালাগাল দিতে থাকে। অখিল পোদ্দার প্রতিবাদ করলে পুলিশ সদস্য আজাদসহ তার সঙ্গীয় ফোর্স বেধড়ক মারপিট শুরু করে। ওই সময় ঘটনা জানানোর জন্য অখিল পোদ্দার তার মোবাইল বের করলে পুলিশ তা ভেঙে ফেলে। পরে স্থানীয়রা উপস্থিত হলে পুলিশ সদস্য আজাদ তাদের সাদা কাগজে স্বাক্ষর করিয়ে এবং তথ্যপ্রযুক্তি আইনে মামলা দেয়ার কথা বলে হাতকড়া পরিয়ে তাকে ও মনিরুল ইসলামকে থানায় নেয়।অখিল পোদ্দার আটকের খবর পেয়ে কুষ্টিয়া ও কুমারখালীর সাংবাদিকরা থানায় উপস্থিত হলে তাকে কুমারখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হয়।এ ঘটনার প্রতিবাদে কুমারখালী থানার উপ-পরিদর্শক আবুল কালাম আজাদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি ও চাকরি থেকে বরখাস্তের দাবিতে ঘন্টাব্যাপী থানা ঘেরাও করে রাখে স্থানীয় সাংবাদিকরা। পরে ওই পুলিশ সদস্যকে পুলিশ লাইনে ক্লোজ করা হয়। কুমারখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) লুৎফর রহমান জানান, বিষয়টি অনাকাঙ্খিত। তদন্তপূর্বক জড়িত পুলিশের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। পরে ওই রাতেই এএসআই আবুল কালাম আজাদকে কুষ্টিয়া পুলিশ লাইনে ক্লোজ করা হয়। এঘটনায় কুষ্টিয়া সাংবাদিক মহলে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

sam_99

সংশ্লিষ্ট খবর

আজ মঞ্চ নাটক দেখুন

  ২৫, ফেব্রু ২০১৫  |    272

ফুটপাতেও রাত কাটিয়েছি : কঙ্গনা

  ৮, সেপ্টে ২০১৫  |    774