ইউটিউব এর হাতে জিম্মি বাংলাদেশ !

  ১৩, মার্চ ২০১৬  |    Slider, বিশেষ প্রতিবেদন  |    1830

অনলাইন জগতের মাধ্যমে  (ইউটিউবে )  সবচেয়ে দ্রুত সময়ে দর্শকদের মাঝে ছড়িয়ে দিয়ে , দেশীয় চলচিত্র ও মিউজিক ইন্ডাস্ট্রি শিল্প কে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন দেশীয় কিছু প্রতিষ্ঠান। বাংলাদেশ এর মিউজিক ইন্ডাস্ট্রির মধ্যে প্রথম সারিতে অবস্থানরত প্রতিষ্ঠান গুলো  যেমনঃ লেজার ভিশন, সিডি চয়েস, ঈগল মিউজিক, জাজ মাল্টিমিডিয়া ছাড়াও আরো বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান রয়েছে। প্রতিষ্ঠান গুলো তাদের নিজস্ব ব্যানারে ইউটিউব চ্যানেল এর মাধ্যমে খুব সহজে এবং অল্প সময়ে দর্শকদের মাঝে দেশীয়  সংগীত ও চলচিত্র গুলো ছড়িয়ে দিচ্ছে । কিন্তু কিছুদিন ধরে ইচ্ছাকৃত ফেক রিপোর্টের কবলে পরে বন্ধ হয়ে যাচ্ছে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান এর ইউটিউব  চ্যানেল গুলা!  কিন্তু কেন ? বন্ধ করার পিছনে কি কারণ ? সম্প্রতি ইউটিউব  জাজ মাল্টিমিডিয়ার চ্যানেল বন্ধ করে দেয় , এ বিষয় নিয়ে বাংলাদেশ এর মিউজিক ইন্ডাস্ট্রি নিয়ে কাজ করছেন এমন কয়েক জন এর সাথে কথা বলেছেন   মিডিয়া কথার  প্রতিনিধি ।

লেজার ভিশন এর কর্ণধার  জনাব  আরিফ বলেনঃ  আমাদের কোন কন্টেন্ট যদি ইউটিউবে ফেক রিপোর্ট এর মধ্যে পরে তাহলে ইউটিউব আমাদের চ্যানেলটা বন্ধ করে দেয়, এর পরে ইউটিউব এর সাথে ইমেল এর মাধ্যমে আমরা যোগাযোগ শুরু করি, ইউটিউবকে আমাদের কন্টেন্ট এর ওয়ানারশিপ  ডকুমেন্ট ইমেলের মাধ্যমে উপস্থাপন করা হয় ।তারপর  ইউটিউব আমাদের  সকল কিছু  যাচাই – বাছাই করে চ্যানেল টা খূলে দেয়। জনাব  আরিফ আরো বলেন যে , এই  বিষয়ে যদি সরকার আমাদের কে সাহায্য করতো তাহলে ,আমাদের এই ঝামেলায় পড়তে হতো না, আমারও সকল ধরণের ডকুমেন্ট দিয়ে আমাদের ব্যবসা-প্রতিষ্ঠানকে  এগিয়ে নিয়ে যেতে পারতাম।

সিডি চয়েস এর কর্ণধার জনাব জহিরুল ইসলাম সোহেল বলেনঃ  আমাদের ব্যবসা-প্রতিষ্ঠান এর প্রচারের এক বড় মাধ্যম হলো  ইউটিউব  । ইন্টারনেট এর জগতে কিছু হ্যাকাররা দেশে বসে বাহিরের ঠিকানা ব্যাবহার করে  আমাদের কন্টেন্ট গুলো নিজেদের চ্যানেলে মুনাফার লোভের মাধ্যমে  প্রচার করে আসছে, কিন্তু তাদের এই কাজের জন্য আমাদের ব্যবসা-প্রতিষ্ঠান এর ক্ষতি হচ্ছে এবং ইউটিউবে আমাদের চ্যানেল গুলো ফেক রিপোর্ট বা কপি রাইটের কবলে পরে বন্ধ হয়ে যাচ্ছে ।  ইউটিউব এর সাথে আমাদের কথা হচ্ছে এই বিষয় টা নিয়ে সমস্যার সমাধান হবে  আশা করছি ।

ঈগল মিউজিক এর কর্ণধার জনাব কচি বলেন ঃ  আমরা আমাদের  নিজস্ব ব্যানারে ইউটিউব চ্যানেল এর মাধ্যমে খুব সহজে এবং অল্প সময়ে দর্শকদের মাঝে দেশীয়  সংগীত ও চলচিত্র গুলো ছড়িয়ে দিচ্ছি।  এই সমস্যা সমাধানে  আমারা চেষ্টা করছি ।

MIB এর সেক্রেটারি জনাব পাপ্পূ বলেন ঃ জনাব পাপ্পূ বলেন যে এতে আমাদের কিছুই করার থাকে না। বাধ্য হয়ে ইউটিউব এর দিকে চেয়ে থাকা ছাড়া কিছুই করার থাকে না।

সংগীত শিল্পী জুয়েল মোরশেদ বলেন ঃ   ইউটিউবে  কোন  মিউজিক কোম্পানির চ্যানেল গুলো যদি ফেক রিপোর্ট বা কপি রাইটের কবলে পরে বন্ধ হয়ে যায় তাহলে যেমন তাদের  ব্যবসা-প্রতিষ্ঠানের ক্ষতি হয় তেমনি আমাদের উপর এর প্রভাব পরে ।

সংশ্লিষ্ট খবর

নায়ক মান্নার মৃত্যুবার্ষিকী আজ !

  ১৭, ফেব্রু ২০১৬  |    1478

আজ নগরবাউল জেমস এর জন্মদিন

  ২, অক্টো ২০১৫  |    1017

ওরা ১১ জন কে কোথায়

  ১৫, ডিসে ২০১৫  |    1814